মেনু নির্বাচন করুন

হাকিমপুর

বরেন্দ্র বহুমুখী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ গঠন:

রাজশাহী, চাপাইনবাবগঞ্জ ও নওগা জেলার অধিকাংশ এলাকা এবং নাটোরসহ বৃহত্তর রংপুর, দিনাজপুর, বগুড়া ও পাবনা জেলার কিয়দংশ এলাকা জুড়ে বরেন্দ্র অঞ্চল অবস্থিত। দেশের অন্যান্য স্থানের তুলনায় এ অঞ্চলের চিত্র সম্পূর্ন ভিন্ন। রোদে পোড়া উত্তপ্ত উচু-নিচু বিস্তীর্ণ মাঠ, বাবলা, ক্যাকটাস ও গুল্মজাতীয় কিছু উদ্ভিদ ও মাঝে মাঝে তাল গাছের উপস্থিতি ছিল এই এলাকার সাধারণ দৃশ্য। এসব এলাকার জলবায়ু অত্যান্ত রুক্ষ দেশের অন্যান্য অঞ্চলের তুলনায় এ অঞ্চলে বৃষ্টিপাতের পরিমাণ অনেক কম। বিগত দিনে এখানকার কৃষি কাজ বৃষ্টি নির্ভর ছিল বিধায় বছরে একটি ফসল উৎপন্ন হতো যথাসময়ে বৃষ্টিপাত না হলে ফসল উৎপাদন ব্যবহত হতো। ফলে এসব এলাকার জনসাধারণ অত্যান্ত দরিদ্র ছিল। এমনকি অনেক যোদ্দার ব্যক্তিও ছিল অভাবী। তাই কাজের সন্ধানে এখানকার জনসাধারণ নিয়মিত অন্যা্ত্র গমন করত। মাটির গঠন এবং ভূ-গর্ভস্থ পানির স্তরের কারণে এসব অঞ্চলে প্রচলিত গভীর নলকূপ দ্বারা সেচ কাজ সম্ভব ছিল না। ১৯৮৫সনে এ অঞ্চলের তৎকালীন বিএডিসির প্রকৌশলীরা এক ধরণের গভীর নলকূপ  উদ্ভাবন করে। ভূ-গর্ভস্থ পানি দ্বারা সেচের সুযোগ সৃষ্টি করেন।এর প্রেক্ষিতে বরেন্দ্র এলাকায় সার্বিক উন্নয়নের জন্য রাজশাহী, চাপাই নবাবগঞ্জ ও নওগা জেলার ১৫টি উপজেলাকে সম্পৃক্ত করে বিএডিসি’র অধীনে বরেন্দ্র সমন্বিত এলাকা উন্নয়ন প্রকল্প (বিআইএডিপি) নামে একটি প্রকল্প গ্রহণ করা হয়। এ প্রকল্পের আওতায় ছিল সেচ কাজের জন্য গভীর নলকূপ স্থাপন, সংস্কারের অভাবে পানির ধারণ ক্ষমতা না থাকা পুকুর ও খাল পুন: খনন, বৃক্ষরোপন এবং যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়নের জন্য অত্যান্ত গ্রামাঞ্চলে সড়ক নির্মান। প্রকল্পটির সাফল্যর কারণে সমগ্র বরেন্দ্র এলাকার উন্নয়নের জন্য ১৯৯২সনে রাজশাহী, চাপাই নবাবগঞ্জ ও নওগা জেলার সমগ্র ২৫টি উপজেলাকে অন্তর্ভূক্ত করে বিএডিসির কর্মকর্তাদের সমন্বয়ে বরেন্দ্র বহুমুখী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (বিএমডিএ) গঠিত হয়। বিএমডিএ তার প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে নিম্নোক্ত লক্ষ্যগুলোকে  উদ্দেশ্য করে তার কার্যক্রম শুরু করে:


Share with :

Facebook Twitter